দীর্ঘ ১১ বছর পর আলোচিত সামাদ মাস্টার হত্যার রায়

রাহাত রওশন ,শরীয়তপুর প্রতিনিধি

শরীয়তপুর সদর উপজেলার চন্দ্রপুর ইউনিয়নের সন্তোষপুর গ্রামে মাস্টার আব্দুস সামাদ আজাদকে গত ১৫ই জানুয়ারি ২০১০ সালে আনুমানিক সন্ধ্যা সাতটার দিকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

দীর্ঘ ১১ বছর পর আলোচিত মাস্টার আব্দুস সামাদ আজাদের নৃশংসভাবে হত্যার বিচার হতে যাচ্ছে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর (বুধবার) মামলাটির রায় হতে যাচ্ছে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের ঢাকা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল ৩-এ।

তিনি শরীয়তপুর সদর উপজেলার তৎকালীন চিকন্দী শরফ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, ২০১০ সালের ১৫ জানুয়ারি শুক্রবার রাত সাড়ে ৭ টার দিকে সদর উপজেলার চন্দ্রপুর ইউনিয়নের সন্তোষপুর গ্রামে সামাদ মাস্টার এর ওপর নৃশংস হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় হামলাকারীরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলিও ছুঁড়ে এবং কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে এলাকায় আতঙ্ক তৈরি হয়। সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা তার মৃত্যু নিশ্চিত করে স্থান ত্যাগ করে। স্থানীয় লোকজন সামাদ মাস্টারকে মৃত উদ্ধার করে তার নিজ বাড়িতে নিয়ে যায় পরে সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। তি‌নি সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাথে জড়িত ছি‌লেন।

মাস্টার আব্দুস সামাদ আজাদ সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের একজন একনিষ্ঠ কর্মী ছিলেন কোন পদ-পদবী না থাকা সত্ত্বেও তিনি অনেক জনপ্রিয় ছিলেন সাধারণ মানুষের কাছে।ইউনিয়ন নির্বাচন এবং স্থানীয় কোন্দল নিয়ে এ ঘটনা ঘটে বলে জানায় তার পরিবার ও স্থানীয়রা।

এঘটনায় তার পরিবারের সদস্যরা ও গ্রামবাসীসহ সর্বস্তরের সকল সাধারণ মানুষ তার এই নৃশংস হত্যাকা-ের বিচার চেয়েছেন এবং অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি কামনা করেছেন।

পাঠক মন্তব্য

     More News Of This Category এই বিভাগের আরও খবর

ফেইজবুকে আমরা

error: Content is protected !!