খুলে গেলো মসজিদ ,শর্ত সাপেক্ষে জামাতে নামাজ ও তারাবির অনুমতি

মোঃ নজরুল ইসলাম (গাজীপুর)ঃ

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে লকডাউনের বিধিনিষেধ করার ধারায় এবার মসজিদে জামাতে নামাজ পড়ার অনুমতি দিল সরকার। গতকাল বুধবার ধর্ম মন্ত্রণালয় জানিয়েছেন,বৃহস্পতিবার জোহরের ওয়াক্ত থেকে স্বাস্থ্যবিধি ও দূরত্ব রক্ষার নিয়মসহ ১২ টি শর্ত মেনে সুস্থ ব্যক্তিরা দেশের মনজিদগুলোতে জামাতে নামাজ পড়তে পারবেন।

গত ৬ এপ্রিল থেকে দেশের সব মসজিদে বাইরে থেকে মুসল্লি ঢোকার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় সরকার। বলা হয় ইমা-মোয়াজ্জিনসহ মসজিদেও খাদেমরাসহ মিলে পাঁচজনের জামাত হবে।

আর জুমার নামাজে থাকতে পারবেন মসজিদসংশ্লিষ্ট ১০ জন। এরপর ২৩ এপ্রিল আরেক আদেশে মসজিদে তারাবির জামাতে সর্বোচ্চ ১২ জন অংশগ্রহণ করতে পারবেন বলে ঠিককরে দেয় ধর্ম মন্ত্রণালয়।

কড়াকড়ি শুরুর এক মাসের মাথায় তা শিথিল করে ধর্ম মন্ত্রণালয় ১২ শর্তে মসজিদ খুলে দেওয়া হয়। ১/মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের আগে সম্পূর্ন মসজিদ জীবাণুনাশক দিয়ে পরিস্কার করতে হবে। বাইরে থেকে যারা নামাজ যাবেন,তাদের নিজ দায়িত্বে জায়নামাজ নিয়ে যেতে হবে। ২/ মসজিদের প্রবেশদারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার অথবা হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ সাবান,পানি রাখতে হবে।

মুসল্লিদের অবশ্যই মাস্ক পড়ে মসজিদে যেতে হবে। ৩/ প্রত্যেককে নিজের বাসা থেকে অজু করে সুন্নত নামাজ ঘরে আদায় করে মসজিদে যাবেন এবং অজু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত দুতে হবে। ৪/ কাতারে নামাজে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব্ আর্থাৎ ৩ ফুট দূরত্বে দাঁড়াতে হবে।

৫/এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে। ৬/ শিশু,বয়োবৃদ্ব যে কোনো অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থ ব্যক্তিদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তিরা জামাতে অংশ নিতে পারবে না। ৭/ মসজিদেও অজু খানায় সাবান/হ্যানস্যানিটাইজার রাখতে হবে। মসজিদে সুরক্ষিত জায়নামাজ বা টুাপ ব্যবহার করা যাবে না।

৮/ সর্ব সাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ,স্থানীয় প্রশাসন এবং আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর নির্দেশনা অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে। ৯/ মসজিদে ইফতার ও সেহেরির আয়োজন করা যাবে না। ১০/ এসব শর্ত পালন সাপেক্ষে প্রত্যেক মসজিদে সর্বোচ্চ পাঁচজন নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে ইতেকাফ এর জন্য অবস্থান করতে পারবেন।

১১/ করোনাভাইরাস মহামারির থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য নামাজ শেষে দোয়া করার জন্য খতিব ও ইমামদেও অনুরোধ করা হচ্ছে। ১২/ খতিব,ইমাম ও মসজিদ পরিচালনা কমিটি বিষয়গুলোর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবেন।এসব নির্দেশনা লংঘিত হলে স্থানীয় প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনী সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলদেও রিরোদ্বে আইনগত ব্যবস্থা নেবে বলে সতর্ক করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

     More News Of This Category এই বিভাগের আরও খবর

ফেইজবুকে আমরা

Archive Calendar

error: Content is protected !!