যশোরের (যবিপ্রবিতে) নতুন করে আরও ১৮জন সহ সারাদেশে আক্রান্ত ৫৪৯ মৃত্যু ৩ জন

খোরশেদ আলম :
 যশোরে নতুন করে আরও ১০ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট ৪৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হলো।
যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জেনোম সেন্টারে আরও ১৮ জনের শরীরে নভেল করোনাভাইরাসের পজিটিভ এসেছে। গত ২৪ ঘন্টায় ২টি জেলার মোট ৭২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৮ রোগী কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়। এর মধ্যে যশোরে ৪৭ নমুনায় ৩ চিকিৎসক ও ৩ সেবিকাসহ ১০ জন, ঝিনাইদহের ২৩টি নমুনায় ৮ জন। বিষয়টি নিশ্চিত করে জেনোম সেন্টারের সহকারি পরিচালক প্রফেসর ড. ইকবাল কবির জাহিদ সাংবাদিকদের জানান, এদিন নড়াইল জেলার ২টি নমুনা পরীক্ষা করলে ফলাফল নেগেটিভ পাওয়া যায়।\
যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানান, যশোর জেলায় আক্রান্ত ১০ জনের মধ্যে কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ৩ জন চিকিৎসকসহ ৪ জন ও চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ৩ জন সেবিকা, পৌরশহরের কারিগর পাড়ার একজন নারী (গার্মেন্টসকর্মী), বাঘারপাড়া উপজেলার মহিরণ গ্রামের বাসিন্দা, খুলনা সরকারি বিএল কলেজের ছাত্র ও যশোর সদর উপজেলার ১ জন রয়েছেন। সিভিল সার্জন আরো জানান, এই পর্যন্ত যশোর জেলায় মোট ৪৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত হলো।
এদিকে যশোর সহ সারাদেশে ২৮ এপ্রিল মঙ্গলবারে আইইডিসিআর ( IEDCR) সুত্রে, গত ২৪ ঘন্টায় ৪৩৩২ জনের নমুনা পরীক্ষা করার পর নতুন করে কভিড-১৯ পজিটিভ হয়েছেনঃ ৫৪৯ জন। মৃত্যু হয়েছেঃ ০৩ জন। মৃতদের ৩ জনই ঢাকার বাসিন্দা মৃত ৩ জনেরই বয়স ৬০ বছরের উর্ধে। সর্বমোট আক্রান্তঃ ৬৪৬২ জন। আক্রান্ত ৬৮% পুরুষ আক্রান্ত ৩২% নারী। সর্বাধিক আক্রান্ত ২১ থেকে ৪০ বছরের মানুষ। সর্বমোট মৃত্যুবরণ করেছেনঃ ১৫৫ জন। মৃত্যু হার ২.৩৯% নুতন করে হাসপাতালের চিকিৎসায় সুস্থ হয়েছেন ৮ অর্থাৎ সর্বমোট সুস্থ হয়েছেনঃ ১৩৯ জন। প্রকৃত সুস্থ সংখ্যা অনেক বেশী কারণ বেশীর ভাগ রোগী বাসায় চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হচ্ছেন। সেই পরিসংখান এখানে নেই। ৭৩শতাংশ রোগী ঢাকা বিভাগের। এর প্রায় অর্ধেক ঢাকা মহানগরের।
এ পর্যন্ত ৬০ জেলায় করোনা সংক্রমিত হয়েছে।
নাটোর, ঝিনাইদহ, খাগড়াছড়ি এবং রাঙামাটি
জেলায় অদ্যাবধী কোন করোনা রোগী সনাক্ত হয়নি। বর্তমানে ঢাকা শহরের রাজারবাগ, মোহাম্মাদপুর, লালবাগ, যাত্রাবাড়ি, বংশাল, মিটফোর্ড, মহাখালী, মীরপুর-১৪, তেজগাঁ, ওশারী, শাহবাগ এবং উত্তরা এলাকা সবচেয়ে করোনা সংক্রমিত। আলহামদুলিল্লাহ, আজ নমুনা examination rate অনুযায়ী সংক্রমণ এবং মৃত্যু হার কিছুটা খুব একটা বাড়েনি মর্মে প্রতীয়মান হয়। তবে করোনা ভাইরাস ক্রমাগতভাবে সমগ্র বাংলাদেশে ছড়িয়ে পরছে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ হতে পরিত্রাণ পেতে হলে সতর্কতা অবলম্বন পূর্বক দয়া করে সামাজিক বিচ্ছিন্নকরন (Social distancing), শারীরিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্য বিধি মেনে ঘরে থাকুন।

     More News Of This Category এই বিভাগের আরও খবর

ফেইজবুকে আমরা

Archive Calendar

error: Content is protected !!