ইউরোপে প্রথম স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে এলিসা গ্রানাটোর শরীরে পরীক্ষামূলকভাবে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়। ছবি : সংগৃহীত

মানবদেহে পরীক্ষামূলকভাবে করোনার ভ্যাকসিন প্রয়োগ করল যুক্তরাজ্য

ইউরোপে প্রথমবারের মতো মানবদেহের শরীরে পরীক্ষামূলকভাবে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রয়োগ করেছে যুক্তরাজ্য। দুজন স্বেচ্ছাসেবীর শরীরে প্রথম এ ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি গতকাল বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে।

 

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রথম ধাপে মোট ৮০০ জনের শরীরে এ ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে। এর মধ্যে অর্ধেককে কোভিড-১৯-এর ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে। বাকি অর্ধেককে কোভিড-১৯-এর ভ্যাকসিনের বদলে একটি কন্ট্রোল ভ্যাকসিন দেওয়া হবে, যেটি মেনিনজাইটিস থেকে সুরক্ষা দেয়।

এ পরীক্ষামূলক পদ্ধতি এমনভাবে সাজানো হয়েছে যে, চিকিৎসকরা ছাড়া কেউই জানতে পারবে না, কার ক্ষেত্রে কোন ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছে।

ভ্যাকসিন নেওয়া দুজনের মধ্যে একজন এলিসা গ্রানাটো। তিনি বলেন, ‘আমি একজন বিজ্ঞানী। তাই যতটা সম্ভব এ বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়াটিকে সাহায্য করার চেষ্টা করতে চাই।’

 

 

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি দল তিনমাস ধরে এই ভ্যাকসিন তৈরির কাজ সম্পন্ন করে। জেনার ইনস্টিটিউটের ভ্যাকসিনোলজির অধ্যাপক সারাহ গিলবার্ট এ গবেষণায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

সারাহ গিলবার্ট বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে এই ভ্যাকসিনের ব্যাপারে আমার অনেক আত্মবিশ্বাস রয়েছে।’

গিলবার্ট আরো বলেন, ‘অবশ্যই আগে আমাদের এটি পরীক্ষা করে নিতে হবে এবং মানুষের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে হবে। আমাদের দেখাতে হবে যে, এটি প্রকৃতপক্ষে কাজ করে। এ ছাড়াও অনেক মানুষের মাঝে এ ভ্যাকসিন প্রয়োগের আগে এও দেখাতে হবে যে, এটি মানুষকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে পারবে।’

এর আগে অধ্যাপক গিলবার্ট বলেছিলেন, এ ভ্যাকসিনের ব্যাপারে ৮০ ভাগ আত্মবিশ্বাস রয়েছে তাঁর। তবে এক্ষেত্রে এখন কোনো বিচার করতে চান না এ গবেষক। এ ব্যাপারে তিনি অনেক আশাবাদী বলেই জানিয়েছেন।

 

     More News Of This Category এই বিভাগের আরও খবর

ফেইজবুকে আমরা

Archive Calendar

error: Content is protected !!