ছবিঃ এম.টুকু

সশস্ত্র বাহিনী ও পুলিশের নিয়ন্ত্রণে ফাঁকা হরিণাকুণ্ডু উপজেলা

এম.টুকু মাহমুদ হরিণাকুণ্ডু থেকে।।

খেলার মাঠে নেই কোলাহল বাজার ঘাট শূন্য স্কুলে নেই শিশু কিশোরদের আনাগোনা। প্রাণঘাতি অদৃশ্য শক্তি মরিণব্যাধী করোনা ভাইরাস থেকে দেশকে সুরক্ষিত রাখতেই সারাদেশের ন্যায় ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলাতে জনগনের চলাচল সীমিত করা হয়েছে। করোনা মোকাবিলায় হরিণাকুণ্ডু বাসীকে ঘরে অবস্থান নিশ্চিত করতে রাস্তায় চলাচল নিয়ন্ত্রণ করছে পুলিশ।

এ সময় সশস্ত্র বাহিনীর পাশাপশি মাঠে রয়েছে আনসার ব্যটালিয়ন।শহরে বের হতে হবে শুধুমাত্র প্রয়োজনে বের হলে পড়তে হবে পুলিশের জেরার মুখে। এমনি দৃশ্য দেখা গেলো দখলপুর বাজারে স্কুল পড়ুয়া এক ছাত্রকে শাস্তি স্বরূপ কান ধরে দাড়িয়ে থাকতে। তবে এই কড়াকড়ির আওতামুক্ত থাকবে জরুরি সেবা। বৃহস্পতিবার ২৬ মার্চ থেকে দেখা গেছে, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দোকান বাদে অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ।

এছাড়া কয়েকটি ইজিবাইক, পাখিভ্যান, প্রশাসন ও সাংবাদিকদের গাড়ি ছাড়া কোন যানবাহন চলছে না সড়কে। ফলে শহরের প্রধান লালন সড়কসহ সব রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়েগেছে। খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বের হচ্চে না। দু’তিন দিনের ব্যবধানে পাল্টে গেছে হরিণাকুণ্ডু শহরের চিত্র।

উল্লেখ্য এই অঘোষিত অবরুদ্ধে পড়া ক্ষুদ্র চা ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান বলেন আমার দোকান থেকে যে, আয় হতো তা থেকে আমার  কিস্তি, সংসারের সকল ব্যায় নির্বাহ করতাম কিন্তু এখন আমি চরম অসহায়ের মধ্যে দিনাতিপাত করছি।

     More News Of This Category এই বিভাগের আরও খবর

ফেইজবুকে আমরা

Archive Calendar

error: Content is protected !!