ছবিঃ এম.টুকু

লালসার স্বীকার,কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় হরিণাকুণ্ডুতে কলেজ ছাত্রীকে মারধর

এম.টুকু মাহমুদ হরিণাকুণ্ডু থেকে ।।

ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলার পারর্বতীপুর গ্রামের সুইটি খাতুন নামের এক কলেজ পড়–য়া ছাত্রীকে নিজ ঘরে প্রবেশ করিয়া মারধর করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ভিকটিম সুইটি খাতুন পারর্বতীপুর স্কুল এন্ড কলেজ‘র দ্বাদশ দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।

সুইটির মা হাজেরা খাতুন বলেন,১৭-০৩-২০২০ আমি দুপুর বেলা গ্রামীণ ব্যাংক সমিতির কিস্তির টাকা পরিষদের লক্ষে বাড়ী হইতে বাহির হইয়া যাই এই সুযোগে সন্ত্রসীরা পূর্ব শত্রুতার জের ধরিয়া আমার বাড়িতে প্রবেশ করিয়া আমার মেয়েকে একা পাইয়া কুরুচিপূর্ণ কথাবার্তা বলে,তখন সুইটি খাতুন বলে মা বাড়িতে নাই মায়ের সাথে কথা থাকলে পরে আসেন বলিলে,বিপ্লব বলে তোর মায়ের সাথে না তোর সাথে কথা আছে এবং আমরা জেনে শুনে ঢুকেছি তোর ঘরে।

এরপর আজগর আলী ও সুজন মিয়া সুইটি খাতুনকে নাকে মুখে স্পর্শ করিয়া অশ্লিল অঙ্গভঙ্গি করে এবং ভিকটিমকে কুপ্রস্তাব দেয়। তাতে রাজি না হওয়ায় জোর করিলে সুইটির চিৎকার চেচামেচি করে এমন সময় বিপ্লব  সুইটির চৌকির উপর ফেলাইয়া শরিরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয় এমনকি লম্পট বিপ্লব সুইটি খাতুনের বিভিন্ন স্থানে হাত দেয় তখন ভিকটিম নিজেকে রক্ষার চেষ্টা করিলে বুকের উপর উঠিয়া বুকের কাপুড় ছিড়িয়া ফেলে এবং তাদের যৌন লালসা চরিতার্থ করিবার উদ্দেশ্যে ভিকটিমের পরনের সেলোয়ার কামিজ খুলিবার জন্য টানা হেচড়া করে এতে ভিকটিমের কামিজ ছিড়িয়া যায়।

এমন সময় বিপ্লব অন্যান্যদের সহযোগিতায় ভিকটিমের শরীরের উপর উঠিয়া ধর্ষনের চেষ্টা করে। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে তাদের যৌন লালসা মেটাতে না পারায় ক্ষুদ্ধ হইয়া লোহার রড দিয়া বিপ্লব ভিকটিমের দুই হাতে পিঠে আঘাদ করিয়া ফোলা চাপা জখম করে। এসময় সুজন তার হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে বাম পায়ে এলোপাতাড়ি আঘাত করিয়া জখম করে এমন সময় স্থানিয় রোজদার আলীর নাবালিকা কন্যা রাবেয়ার চেচামেচিতে স্থানিয়রা আসিয়া তাকে উদ্ধার করে হরিণাকুণ্ডু স্বাস্থ্য কমপ্রেক্সে ভর্তি করে। সেখানেই জীবনের ভুমকি দিলে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নেয় ভিকটিম সুইটি বলে জানান তার অসহায় মা হাজেরা খাতুন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত বিপ্লব হোসেনর(২৬) পিতা সাবেক কমিশনার মোঃ আনিচুর রহমান মিয়া জানান,পুর্বের শত্রুতার জের ধরিয়া হাজেরা খাতুন আমাদের নামে মিথ্যা মামলা করিবার কারণে তার মেয়েকে দিয়ে নিজে নিজের জামা কাপুড় ছিড়িয়া অভিযোগ করেছে বলে শুনিয়াছি। আসলে ঘটনা একেবারে মিথ্যা ও ভিত্তিহিন। তাছাড়া আমি ও আমার সন্তান বিপ্লব সেদিন বাড়িতেই ছিল না। আমি তার আগের রাতে হাজেরার মার খাইয়া হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম এবং বিপ্লবও আমার সাথে ছিল। আর ওরা দুজন ছিল পুকুরে।

এ ব্যাপারে পৌর মেয়র শাহিনুর রহমান রিন্ট জানান,হাজেরা আমার নিকট অভিযোগ দিতে এসছিল বিষয়টি সঠিখ তদন্ত করিয়া আইনানুগ ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। স্থানীয় প্যানেল মেয়র খাইরুল ইসলাম জানান,আমি বিষয়টি লোকমুখে ও হাজেরার নিকট শুনিয়াছি তাছাড়া বাজারেও বলাবলি হচ্ছে বিষয়টির সঠিক তদন্ত করিয়া আইনানুগ ব্যাবস্থা নেওয়া হোক বলে আমি মনে করি।

এছাড়াও স্থানিয়দের নিকট জানতে চাইলে তারা বলেন ওদের দুপক্ষের মাঝে ঝগড়া বিবাদ আছে একে অন্যর নিকট মামলা মোকাদ্দামাও চলছে তবে শুনেছি এ ব্যাপারে কলেজ পড়ুয়া সুইটি খাতুনকে সামান্য মারধর করেছে বিপ্লব সহ অন্যরা।

এ ব্যাপারে বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল ঝিনাইদহে একটি মামলা হইয়াছে।

     More News Of This Category এই বিভাগের আরও খবর

ফেইজবুকে আমরা

Archive Calendar

error: Content is protected !!